ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

১৯১২ সালের নাথান কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯২১ সালের জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করে। ইতিপূর্বে ১৯২০ সালে ভারতীয় আইন সভায় দি ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যাক্ট পাশ হয়। মূলত এ আইন বলেই ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন বিভাগে মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ছিল ৮৭৭ জন এবং শিক্ষক সংখ্যা ছিল ৬০ জন। প্রতিষ্ঠা পর্বে ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভাইস চ্যান্সেলর ছিলেন স্যার পি. জে. হার্টগ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এদেশের মুক্তিসংগ্রাম ও স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম সূতিকাগার। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৪৮ এবং ১৯৫২ পর্বের রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন, ১৯৬২ সালের শাসনতন্ত্র বিরোধী আন্দোলন, ষাটের দশকে আইয়ুব বিরোধী আন্দোলন, ৬ দফা ও ছাত্রদের ১১ দফার ভিত্তিতে সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদের আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অসামান্য অবদান রয়েছে। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি বাহিনী জগন্নাথ হল ও জহুরুল হক হলসহ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ব্যাপক গণহত্যা ও ধবংসযঞ্জ চালায়। নব্বইয়ের সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকের সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। বাংলাদেশের প্রাচীন ও প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে বর্তমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি অনুষদ (চিকিৎসা, শিক্ষা এবং স্নাতকোত্তর চিকিৎসা বিজ্ঞান ও গবেষণা অনুষদসহ) ৮৪টি বিভাগ, ১২টি ইনস্টিটিউট এবং ৫৪টি ব্যুরো ও গবেষণা কেন্দ্র এবং ২০টি আবাসিক হল রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৬তম সমাবর্তনে প্রদত্ত তথ্য অনুসারে বর্তমানে ১৯৯৯ শিক্ষক (যাদের মধ্যে ১০০০ এর বেশি দেশে-বিদেশে উচ্চতর ডিগ্রীপ্রাপ্ত), ৩৯,৪৯৬ জন ছাত্র-ছাত্রী এবং ৪৩০৩ জন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী রয়েছে। ২০১১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় খেতাব স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করে।